1. pirojpurpost24@gmail.com : admin :
  2. kumarshuvoroy@gmail.com : Shuvo Roy : Shuvo Roy
  3. epiropur@gmail.com : e p : e p
  4. eshuvo1@gmail.com : shuvo roy : shuvo roy
স্বরূপকাঠী উপজেলার সমবায় কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষ বানিজ্যের অভিযোগ | পিরোজপুর পোষ্ট ২৪
মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:০০ পূর্বাহ্ন

স্বরূপকাঠী উপজেলার সমবায় কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষ বানিজ্যের অভিযোগ

  • শেষ হালনাগাদ : মঙ্গলবার, ২১ মে, ২০১৯
  • ৫৭২ জন সংবাদটি দেখেছেন
সায়েম আহমেদ, নেছারাবাদ (স্বরূপকাঠী ) : পিরোজপুরের স্বরূপকাঠী উপজেলার সমবায় কর্মকর্তা হাফিজ আহম্মদের বিরুদ্ধে সমবায় সমিতির নিবন্ধনের নামে ঘুষ বানিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে । প্রতিটি সমবায় সমিতি নিবন্ধনে ২০,০০০ থেকে ৩০,০০০ টাকা ঘুষ নেন উপজেলার সমবায় অফিসের এ কর্মকর্তা। আর সমবায় সমিতির নিবন্ধন পাওয়ার পর প্রকৃত সমবায় সমিতির নিয়মকে তোয়াক্কা না করে সুদ বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে সুদের বৈধতা নেয়া উপজেলার অতি মুনাফা লোভীরা । আপাতদৃষ্টিতে নামে সমবায় সমিতি হলেও কার্যত ক্ষেত্রে ৩০/৬০ শতাংশ যা প্রতিদিন কিস্তির চক্রবৃদ্ধি হারে ১০৮/১৫০ শতাংশ সুদ নেয়ায় গরীব ও মেহনতি মানুষের উপর চলছে রক্তচোষা এসব অবৈধ সুদ ব্যবসার বৈধ বাণিজ্য।
এদিকে গত ১৪ মে সমবায় সমিতির নিবন্ধন নিতে হাফিজ আহম্মেদের অফিসে বলদিয়া গ্রামের দুই যুবক গেলে একটি গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতির নিবন্ধন বাবদ ত্রিশ হাজার টাকা ঘুষ দাবী করেন এবং তার উপরস্থ কর্মকর্তাসহ কয়েটি ধাপে দিতে হবে বলে জানান। এসময় তিনি আরও বলেন, আপনাদের সকল কাগজের দরকার নাই নিয়ম অনুযায়ী যা পারেন দিবেন বাকিটা আমি দেখে নেব। মানুষ টাকা দেবে আউশে (এমনিতে) ত্রুটি বিচ্যুতিতো থাকবেই। ঘুষ দিলে মাত্র পনের দিনে নিবন্ধন মিলবে , না দিলে তার উপরস্থ কর্মকর্তা কাগজে সই করবেন না । এসময় তিনিও সুপারিশ করবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন। এ প্রতিবেদকের কাছে হস্তান্তর করা ওই দুই যুবকের করা  ভিডিওতে এ অভিযোগের সত্যতা মিলেছে।
ঘুষবাণিজ্যের অভিযোগের বিষয়ে স্বরূপকাঠী উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা হাফিজ আহমেদর বক্তব্য জানতে গেলে তিনি নামাজের অযুহাতে স্থাণীয় এনজিও কমিটির সভাপতিসহ কয়েকজন নেতা ডেকে এনে বক্তব্য না দিয়ে ম্যানেজ করার চেষ্টা করেন। ঘুষ বাণিজ্যের ব্যাপারে বলেন, আমার এখানে সমিতির নিবন্ধন ছাড়া কিছু নেই, যা থাকার তা আছে এলজিইডি, ভূমি ও পিআইও অফিসে।
এ বিষয়ে নেছারাবাদ উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল হক বলেন, সমবায় হোক আর যেই হোক তার ঘুষ চাওয়ার বিষয়টি যদি তদন্ত সাপেক্ষে প্রমাণিত হয় তাহলে আমি আইনগত ব্যবস্থা নেব, আইনকে সহায়তা করবো।
এব্যাপারে পিরোজপুর জেলা সমবায় কর্মকর্তা আল আমীনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সমবায় সমিতির নিবন্ধনের জন্য অনেক ডকুমেন্ট তৈরী করতে হয় ওরা (হাফিজ) হয়ত লোকজনকে ভয়ভিতী দেখিয়ে টাকা চাইতে পারে। আমার কাছে অভিযোগ এলে আমি যথযথ ব্যবস্থা গ্রহন করব।এসময় তিনি আরো বলেন, সমবায় সমিতির নিয়মে মাসে এক কিস্তি ও বাৎসরিক সর্বোচ্চ ১১শতাংশ সুদ বা লাভ নেয়া যাবে।
আরো সংবাদ
পিরোজপুর পোষ্ট ২৪ ডটকম - ২০১৮-২২। (অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের ছবি, ভিডিও ও সংবাদ কপি করা থেকে বিরত থাকুন)
Theme Customized By PIROJPURPOST24
কারিগরি সহায়তায়: Website-open
x