1. pirojpurpost24@gmail.com : admin :
  2. kumarshuvoroy@gmail.com : Shuvo Roy : Shuvo Roy
  3. epiropur@gmail.com : e p : e p
  4. eshuvo1@gmail.com : shuvo roy : shuvo roy
স্ত্রীকে খুনের অভিযোগে স্বামীসহ গ্রেপ্তার ২ | পিরোজপুর পোষ্ট ২৪
মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৭:১৫ পূর্বাহ্ন

স্ত্রীকে খুনের অভিযোগে স্বামীসহ গ্রেপ্তার ২

  • শেষ হালনাগাদ : মঙ্গলবার, ৯ আগস্ট, ২০২২
  • ৭৬ জন সংবাদটি দেখেছেন

পিরোজপুর পোষ্ট : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলায় শাম্মী আক্তার (৪০) নামের এক নারীকে খুনের অভিযোগে সোমবার রাতে শাম্মী আক্তারের স্বামী শেখ সিরাজুল সালেকিন (৩৩) ও শাম্মীর ভাইয়ের স্ত্রী আয়শা খানমকে (৫০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

নিহত শাম্মী বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলার ছোট রাজাপুর গ্রামে। তিনি মঠবাড়িয়া শহরের কে এম লতীফ সুপার মার্কেটের শাম্মী বিউটি পারলারের মালিক ছিলেন। গ্রেপ্তার আয়শা খানম শরণখোলা উপজেলার রায়েন্দা গ্রামের এমাদুল হকের স্ত্রী ও মঠবাড়িয়া কে এম লতীফ ইনস্টিটিউশনের শিক্ষক।

এর আগে রবিবার রাতে শাম্মীর ছেলে সাইম আলম (১৭) বাদী হয়ে তাঁর বাবা ও মামির বিরুদ্ধে স্থানীয় থানায় হত্যা মামলা করে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে,  রবিবার সিরাজুল ঢাকা থেকে মঠবাড়িয়া আসে । ওই দিন রাতে সিরাজ ও শাম্মীর বিবাহবার্ষিকী উদ্‌যাপন অনুষ্ঠান উপলক্ষে শাম্মীর ভাইয়ের স্ত্রী আয়শা খানম ওই বাড়িতে যান। রাতে তিনি ওই বাড়িতে ছিলেন। এসময় শাম্মী গভীর রাতে সিরাজুল ও আয়শাকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলেন। পরে বিষয়টি নিয়ে শাম্মী ও সিরাজুলের ঝগড়া হয়। ঝগড়ার একপর্যায়ে সিরাজুল ক্ষিপ্ত হয়ে শাম্মীর মুখে বালিশ চাপা দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয় বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার দরবেশপুর গ্রামের ব্যবসায়ী শেখ সিরাজুল সালেকিন ঢাকায় ব্যবসা করেন। তিনি শাম্মী আক্তারের দ্বিতীয় স্বামী। ১৩ বছর আগে প্রথম স্বামী ফিরোজ আলমের সঙ্গে শাম্মী আক্তারের বিবাহবিচ্ছেদ হয়। ফিরোজ আলম ও শাম্মী আক্তারের দুই ছেলে আছে। দুই বছর আগে সিরাজুল সালেকিনের সঙ্গে শাম্মীর বিয়ে হয়। শাম্মী মঠবাড়িয়া শহরের থানাপাড়া মহল্লায় একটি ভাড়া বাড়িতে দুই ছেলেকে নিয়ে থাকতেন। সিরাজুল সালেকিন মাঝে মধ্যে ঢাকা থেকে মঠবাড়িয়ায় আসা-যাওয়া করতেন।

শাম্মীর ছেলে সাইম আলম অভিযোগে করে বলে, হত্যার দায় এড়াতে পরের দিন সকালে সিরাজুল ও আয়শা দুজন মিলে শাম্মীর লাশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। তাঁরা হত্যার ঘটনাকে ‘হার্ট অ্যাটাক’ বলে চালিয়ে দিতে চেয়েছিলেন। রবিবার রাতে ওই ঘটনার সময় সাইম বাসায় ছিল না বলে দাবি করেন। এদিকে সাইমের বড় ভাই একটি মামলায় কারাগারে আছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক দ্বীপ কৃষ্ণ সাহা বলেন, শাম্মীকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। পরে তার দুই স্বজন বাড়ি নিয়ে যেতে চান। তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি মঠবাড়িয়া থানার পুলিশকে জানায়। পরে পুলিশ হাসপাতাল থেকে লাশ উদ্ধার করে নিয়ে যায়।

মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. নূরুল ইসলাম বলেন, ঘটনার পরপরই সিরাজুল সালেকিন ও আয়শা খানমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়। পরে হত্যা মামলায় তাঁদের দুজনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

আরো সংবাদ
পিরোজপুর পোষ্ট ২৪ ডটকম - ২০১৮-২২। (অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের ছবি, ভিডিও ও সংবাদ কপি করা থেকে বিরত থাকুন)
Theme Customized By PIROJPURPOST24
কারিগরি সহায়তায়: Website-open
x