1. pirojpurpost24@gmail.com : admin :
  2. kumarshuvoroy@gmail.com : Shuvo Roy : Shuvo Roy
  3. epiropur@gmail.com : e p : e p
  4. eshuvo1@gmail.com : shuvo roy : shuvo roy
পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ভিজিএফ’র চাল বিতরণে অনিয়ম | পিরোজপুর পোষ্ট ২৪
মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ১০:৪৯ পূর্বাহ্ন

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ভিজিএফ’র চাল বিতরণে অনিয়ম

  • শেষ হালনাগাদ : বৃহস্পতিবার, ৮ আগস্ট, ২০১৯
  • ৫৯৫ জন সংবাদটি দেখেছেন

ইমন চৌধুরী , মঠবাড়িয়া থেকে ফিরে : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার ৪নং দাউদখালী ইউনিয়নে মৎসজীবীদের ভিজিএফ এর চাল বিতরণে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রকাশ্যে এ ভিজিএফ চাল বিতরণ কালে জনপ্রতি অন্তত ৫কেজি করে চাল কম দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় তালিকাভুক্ত জেলেদের মধ্যে ক্ষোভ-অসন্তোষ দেখা দিয়েছে।
চাল কম পাওয়ায় দাউদখালী ইউনিয়ন পরিষদ কার্যলয়ের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ জানায় জেলেরা।

জানাযায়,চলতি বছরের ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই দীর্ঘ ৬৫ দিন ধরে জেলেদের মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা থাকায় তাদেরকে (তালিকা ভুক্ত) সরকারি ভাবে ভিজিএফ এর চাল বরাদ্দ দেয় সরকার। সে ক্ষেত্রে প্রতি জেলে পরিবারকে দুই কিস্তিতে চাল বিতরণ করা হয়। ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে জুন মাসে জনপ্রতি প্রথমে ৪০ এবং চলতি মাসে দ্বিতীয়বার ৪৬ কেজি ৬৬০ গ্রাম বরাদ্দ দেয়া হয়। কিন্তু সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ কতৃপক্ষের বিরুদ্ধে মৎসজীবীদের মাঝে ৪০-৪১ কেজি পর্যন্ত চাল বিতরণের অভিযোগ করে জেলেরা।

মঙ্গলবার ইউনিয়ন পরিষদের নিচতলায় চেয়ারম্যান মোঃ ফজলুল হক খান (রাহাত) ভিজিএফ চাল বিতরণের উদ্বোধন করেণ। তারপর থেকেই চলতে থাকে জনপ্রতি ৪৬ কেজি ৬৬০ গ্রাম চাল না দিয়ে ৪/৫ কেজি করে কম দেওয়ার মহোৎসব। এমন অভিযোগ দেখার জন্য ট্যাগ অফিসার ও মৎস্য সুপারভাইজারের দুইজনের একজনকেও দুপুর ১টা পর্যন্ত দেখা যায়নি চাল বিতরণের স্থানে। দাউদখালী ইউনিয়নে অনুমোদিত ভিজিএফ কার্ডের সংখ্যা ৭২৯ তার মধ্যে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ৭১১ জনকে।

এব্যাপারে ভিজিএফ এর চাল নিতে আসা জেলে পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করে বলেন,তাদের প্রত্যেককেই ৪৬কেজি ৬৬০গ্রাম চাল দেওয়ার কথা থাকলেও ৪০/৪১ কেজি করে চাল দেয়া হয়েছে।
তবে দাউদখালী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোঃ ফজলুল হক খান (রাহাত) চাল কম দেওয়ার অভিযোগের বিষয় অস্বীকার করে বলেন,চাল বরাদ্দ কতটুকু তা আমি জানিনা। মাল আনার জন্য কোনো ক্যারিং দেয় না,এবার ক্যারিং এর জন্য ৬০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। তবে কেরিংবাবদ ২ কেজি বা গোডাউনে বস্তাপ্রতি শট আছে। খরচের জন্য ইউএনও স্যার দুই কেজি করে কম দিতে পারেন বলেছেন। সে মিটিংএ আমি যাইনি,আমার প্যানেল চেয়ারম্যান গেছে।

জেলা মৎস্য অফিসের তথ্যমতে,সাগরে ৬৫ দিনের জন্য মৎস আহরণ নিষেধাজ্ঞার কারণে ভিজিএফ কার্ডধারী প্রত্যেক জেলেকে এবারে ৪৬ কেজি ৬৬০ গ্রাম চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

আরো সংবাদ
পিরোজপুর পোষ্ট ২৪ ডটকম - ২০১৮-২২। (অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের ছবি, ভিডিও ও সংবাদ কপি করা থেকে বিরত থাকুন)
Theme Customized By PIROJPURPOST24
কারিগরি সহায়তায়: Website-open
x