1. pirojpurpost24@gmail.com : admin :
  2. kumarshuvoroy@gmail.com : Shuvo Roy : Shuvo Roy
  3. epiropur@gmail.com : e p : e p
  4. eshuvo1@gmail.com : shuvo roy : shuvo roy
ইন্দুরকানিতে সরকারি গাছ বিক্রি করে দিলেন সমিতির সভাপতি জাহাঙ্গীর ! | পিরোজপুর পোষ্ট ২৪
সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৫৩ পূর্বাহ্ন

ইন্দুরকানিতে সরকারি গাছ বিক্রি করে দিলেন সমিতির সভাপতি জাহাঙ্গীর !

  • শেষ হালনাগাদ : বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট, ২০১৯
  • ৬৫৫ জন সংবাদটি দেখেছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক: ইন্দুরকানি উপজেলার পত্তাশী ইউনিয়নে সড়কের দুই পাশে সমিতির রোপনকৃত (বন বিভাগ-ইউপি ও উপকারভোগী) বিশ বছর মেয়াদী চুক্তিভিত্তিক (রেজিষ্ট্রীকৃত) সরকারি বিভিন্ন মূল্যবান গাছ ইউনিয়ন পরিষদকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে বিক্রি করে দিলেন সমিতির সভাপতি নিজেই। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর উক্ত ইউনিয়নে চলতি অর্থ বছর স্থানীয় বোর্ড স্কুল সড়ক থেকে কাজী বাড়ি পর্যন্ত প্রায় ১হাজার ১শ’ মিটার দৈর্ঘের সড়ক প্রসস্থকরন কাজের টেন্ডার আহবান করে। প্রকৌশল অধিদপ্তর থেকে উপজেলা বন বিভাগকে এ সংক্রান্ত পত্র প্রেরন করে সড়কের দুই পাশের বৃক্ষরাজি অপসারনের জন্য বলা হয়। কিন্তু বন বিভাগ থেকে নিলামে গাছ বিক্রির পূর্বেই সমিতির সভাপতি জাহাঙ্গীর কাজী মূল্যবান কয়েকটি শিশু গাছ কেটে ব্যবসায়ীদের কাছে গোপনে বিক্রি করে দেয়। বিষয়টি জানাজানি হলে ইউপিসহ উপকারভোগীদের মধ্যে শোরগোল বেধে যায়।
ইন্দুরকানি উপজেলা বন বিভাগের ভারপ্রাপ্ত বন সংরক্ষক সরদার হাবিবুর রহমান জানান, গাছ কাটার বিষয়টি জানার পর তিনি সেখানে গিয়ে একটি চাম্বল গাছ জব্দ করে সমিতির ওই সভাপতির বাড়িতেই আবার জিম্মায় রাখেন, যা নিয়েও বিতর্ক রয়েছে। তিনি আরও জানান, ওই সড়কে আরও মূল্যবান বেশ কিছু গাছ রয়েছে যেগুলো নিলাম বিজ্ঞপ্তির পর কাটা হবে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয়রা জানান, কোরবানির ঈদের পূর্বে গাছ কাটার বিষয়টি ঘটলেও ছুটির কারনে বিষয়টি ধামাচাপা পড়ে যায়। তারা আরও জানান, কাটা গাছগুলোর মধ্যে বিশালাকৃতির পাকা (বনজ) শিশু, মেহেগিনি, চাম্বল, রেইন্ট্রি ও আকাশমনিসহ বিভিন্ন জাতের গাছ রয়েছে। স্থানীয়রা ভয়ে গাছগুলো ক্রয় না করায় অন্য গাছ ব্যবসায়ী জুয়েল ও আক্রামের কাছে শিশু গাছের ৫টি গুঁড়ি বিক্রয় করে মাত্র ২০ হাজার টাকায় সভাপতি। অথচ, ওই গাছের সরকারি মূল্যই হবে অন্তত ৭৫ থেকে ৮৫ হাজার টাকা বলে জানান তারা। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত কাজী জাহাঙ্গীরের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তার সেল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।
পত্তাশী ইউপি চেয়ারম্যান হাওলাদার মোহাম্মদ মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, বিচ্ছিন্নভাবে তিনি গাছ কাটার বিষয়টি প্রথমে তিনি মৌখিকভাবে জেনেছেন। তিনি বলেন, বন বিভাগ থেকে তাকে এ বিষয় কিছুই জানানো হয়নি। সরকারি গাছ আত্মসাতের বিষয়টি উপজেলার আইন-শৃংখলা কমিটির সভায় উথ্থাপন করবেন বলেও তিনি জানান।

আরো সংবাদ
পিরোজপুর পোষ্ট ২৪ ডটকম - ২০১৮-২২। (অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের ছবি, ভিডিও ও সংবাদ কপি করা থেকে বিরত থাকুন)
Theme Customized By PIROJPURPOST24
কারিগরি সহায়তায়: Website-open
x